Friday, 19 October 2018

Ayub Bachchu-death-height-weight-age-wife-family-biography & wiki in Bengali

আয়ুব বাচ্চুর   জীবন বৃত্তান্ত :
চলে গেলেন আয়ুব বাচ্চু ,গিটার আর বাজানো হলোনা তার। তিনি একজন বাংলাদেশী গায়ক, গিটারবাদক, গীতিকার, সুরকার, ও প্লেব্যাক শিল্পী। এল আর বি ব্যান্ড দলের লিড গিটারবাদক এবং ভোকাল বাচ্চু বাংলাদেশের ব্যান্ড জগতের জনপ্রিয় ও সম্মানিত ব্যক্তিত্বদের একজন।
আসল নাম :-রবিন ।   
ডাকনামঃ-এ বি , বাচ্চু ভাই 
জাতিসত্তা : বাঙ্গালী    । 
পেশা      :-  গিটার বাদক ,সংগীত শিল্পী ,সংগীতজ্ঞ ,ও গীতিকার । 
:শারীরিক গঠন :
উচ্চতা (প্রায় ):-  ১৭০সেন্টিমিটার,১.৭০মিটার,৫ফুট ৮ ইঞ্চি। 
ফিগার মেজারমেন্ট :চেস্ট:৪৪ ইঞ্চি ,কোমর :৩৪ইঞ্চি ,কব্জি :১৮ইঞ্চি । 
ওজন  (প্রায় ):-৭৫ কিলোগ্রাম 
চোখের  রঙ :- কালো  ।   
চুলের রঙ   : -কালো ।   
:ব্যাক্তিগত জীবন: 
জন্ম সন :-১২অগাস্ট  ১৯৬২ সন।  
বয়স :-(২০১৮ সালের হিসাবে) ৫৬ বছর। 
মৃত্যু :১৮ ই অক্টোবর  ২০১৮ সালে। 
:মৃত্যুর কারণ 
১৮ অক্টোবরে ২০১৮ সাল সকালে অসুস্থতার কারণে বাচ্চুর ব্যক্তিগত গাড়িচালক তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যায়। গাড়িতে তোলার সময় তার মুখ থেকে ফেনা বের হচ্ছিল। সকাল সোয়া নয়টার দিকে তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকেরা জানান, হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে বাচ্চুর মৃত্যু হয়েছে। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তিনি হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হন বলে ধারণা করা হচ্ছে। স্কয়ার হাসপাতালের মেডিকেল ডিরেক্টর ডা. মির্জা নাজিমুদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, জরুরি বিভাগে কার্ডিয়াক কনসালট্যান্ট মুনসুর মাহবুবের উপস্থিতিতে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ধরে আইয়ুব বাচ্চুর হৃৎস্পন্দন ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হয় এবং সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়। সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে আইয়ুব বাচ্চুকে মৃত ঘোষণা করা হয়।
জন্মস্থান  :চট্টগ্রাম ,বাংলাদেশ   . 
রাশি : সিংহ  রাশি ।    
রাস্টীয়তা : বাংলাদেশী  ।  
নিবাস : চট্টগ্রাম ,বাংলাদেশ  
স্কুলঃ  কলেজঃ  অজানা। 
শিক্ষা যোগত্যা : অজানা ।   
:পরিবার:
পিতা : অজানা  
মাতা  :আজান  
বোন :অজানা  
ভাই  : অজানা  
ধর্ম    : ইসলাম  । 
বর্তমান নিবাস  :ঢাকা ,বাংলাদেশ    
:আয়বের একক এলব্যাম :
রক্তগোলাপ (১৯৮৬)
ময়না (১৯৮৮)
কষ্ট (১৯৯৫)
সময় (১৯৯৮)
একা (১৯৯৯)
প্রেম তুমি কি! (২০০২)
দুটি মন (২০০২)
কাফেলা (২০০২)
প্রেম প্রেমের মতো (২০০৩)
পথের গান (২০০৪)
ভাটির টানে মাটির গানে (২০০৬)
জীবন (২০০৬)
সাউন্ড অব সাইলেন্স (ইন্সট্রুমেন্টাল, ২০০৭)
রিমঝিম বৃষ্টি (২০০৮)
বলিনি কখনো (২০০৯)
জীবনের গল্প (২০১৫)
:তাঁর ব্যান্ড এলব্যাম :
এলআরবি (১৯৯২)
সুখ (১৯৯৩)
তবুও (১৯৯৪)
ঘুমন্ত শহরে (১৯৯৫)
ফেরারি মন (১৯৯৬)
স্বপ্ন (১৯৯৬)
আমাদের বিস্ময় (১৯৯৮)
মন চাইলে মন পাবে (২০০০)
অচেনা জীবন (২০০৩)
মনে আছে নাকি নেই (২০০৫)
স্পর্শ (২০০৮)
যুদ্ধ (২০১২)
:তাঁর প্লে ব্যাক  :
নেপথ্য কণ্ঠশিল্পী
লাল বাদশা (১৯৯৯)
আম্মাজান (১৯৯৯)
গুন্ডা নাম্বার ওয়ান (২০০০)
ব্যাচেলর (২০০৪)
রং নাম্বার (২০০৪)
চাঁদের মত বউ (২০০৯)
চোরাবালি (২০১২)
টেলিভিশন (২০১৩)
এক কাপ চা (২০১৪)
আরও :
বৈবাহিক সম্পর্ক :বিবাহিত   ।  
স্ত্রীঃ ফিরদৌস আয়ুব চান্দনা। 
আয়ুব বাচ্চুর পরিবার 

সন্তান ও সন্ততি : ২ সন্তান। ছেলেঃ ফাইরুজ ও মেয়েঃ তাজওয়ার। 


আয়ুব বাচ্চু  সমন্ধে কিছু অজানা কথা :
  • প্রভাস    কি  ধুমপান করেন ? অজানা ।   
  • প্রভাস   কি  মদ্যপান করেন ? অজানা  । 
  • সঙ্গীতজগতে তার যাত্রা শুরু ফিলিংসের মাধ্যমে ১৯৭৮ সালে। তিনি তার শ্রোতা-ভক্তদের কাছে এবি (AB) নামেও পরিচিত। তার ডাক নাম রবিন। মূলত রক ঘরানার কন্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সঙ্গীত এবং লোকগীতি ঘরনায়ও তিনি কাজ করেছেন।
  • তার কন্ঠ দেয়া প্রথম গান "হারানো বিকেলের গল্প"। গানটির কথা লিখেছিলেন শহীদ মাহমুদ জঙ্গী। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সালে তিনি সোলস ব্যান্ডের সাথে যুক্ত ছিলেন। ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত রক্তগোলাপ আইয়ুব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম, যেটি তেমন সাফল্য পায় নি। বাচ্চুর সফলতার শুরু তার দ্বিতীয় একক ময়না (১৯৮৮) অ্যালবামের মাধ্যমে।
  • ১৯৯১ সালে বাচ্চু এল আর বি ব্যান্ড গঠন করেন। ব্যান্ডের সাথে তার প্রথম ব্যান্ড অ্যালবাম এল আর বি প্রকাশিত হয় ১৯৯২ সালে। এটি বাংলাদেশের প্রথম দ্বৈত অ্যালবাম। এই অ্যালবামের "শেষ চিঠি কেমন এমন চিঠি", "ঘুম ভাঙ্গা শহরে", "হকার" গানগুলো জনপ্রিয়তা লাভ করে। পরে ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে তার দ্বিতীয় ও তৃতীয় ব্যান্ড অ্যালবাম সুখ ও তবুও বের হয়। সুখ অ্যালবামের "সুখ, "চলো বদলে যাই", "রূপালি গিটার", "গতকাল রাতে" উল্লেখযোগ্য গান। "চলো বদলে যাই" বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতে অন্যতম জনপ্রিয় একটি গান। গানটির কথা লিখেছেন ও সুর করেছেন বাচ্চু নিজেই। ১৯৯৫ সালে তিনি বের করেন তৃতীয় একক অ্যালবাম কষ্ট। সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামের একটি বলে অভিহিত করা হয় এটিকে। এই অ্যালবামের প্রায় সবগুলো গানই জনপ্রিয়তা পায়। বিশেষ করে "কষ্ট কাকে বলে", "কষ্ট পেতে ভালোবাসি", "অবাক হৃদয়", ও "আমিও মানুষ"। একই বছর তার চতুর্থ ব্যান্ড অ্যালবাম ঘুমন্ত শহরে প্রকাশিত হয়। তিনি অনেক বাংলা ছবিতে প্লেব্যাক করেছেন। "অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে" বাংলা ছবির অন্যতম একটি জনপ্রিয় গান। এটি তাঁর গাওয়া প্রথম চলচ্চিত্রের গান।
  • গিটারে তিনি সারা ভারতীয় উপমহাদেশে বিখ্যাত। জিমি হেন্ড্রিক্স এবং জো স্যাট্রিয়ানীর বাজনায় তিনি দারুনভাবে অণুপ্রাণিত। বাচ্চুর নিজের একটি স্টুডিও আছে। ঢাকার মগবাজারে অবস্থিত এই মিউজিক স্টুডিওটির নাম এবি কিচেন। তিনি ২০১০ সালে ঈদের জন্য নির্মিত ট্রাফিক সিগন্যাল ও হলুদ বাতি শিরোনামের নাটকে অভিনয় করেন।
Share This
Previous Post
Next Post

Pellentesque vitae lectus in mauris sollicitudin ornare sit amet eget ligula. Donec pharetra, arcu eu consectetur semper, est nulla sodales risus, vel efficitur orci justo quis tellus. Phasellus sit amet est pharetra

0 মন্তব্য(গুলি):

thank you for comment

Read More Post