Tuesday, 12 December 2017

ইসলামে লাভজনক ব্যবসা :-

ইসলামে লাভজনক ব্যবসা  :-
মানুষকে  আল্লাহ সৃষ্টিকুলের  উপর শ্ৰেষ্টত্ব  প্রদান  করেছেন  এবং  নিজের অভিব্যাক্তি   প্রকাশ করার জন্য বিশেষ নেয়ামত  "কথা বলার শক্তি প্রদান করেছেন। যার মাধ্যম হচ্ছে রসনা বা জিহবা। এই নিয়ামতটি ভাল-মন্দ উভয়ক্ষেত্রে  ব্যাবহার করা যায়। যে ব্যাক্তি নিজের যবান কে ভাল বিষয়ে ব্যাবহার করবে সে দুনিয়ার সৌভাগ্যে উপনীত হবে। কিন্তু যে ব্যক্তি উহাকে মন্দ ক্ষেত্রে ব্যাবহার করবে সে উভয়জগতে ধ্বংসের সম্মুখীন হবে। পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের পর সময়কে কাজে লাগানোর জন্য সবচেয়ে শ্রেষ্ট মাধ্যম হচ্ছে আল্লাহর জিকির।

আল্লাহর জিকিরের ফজিলত :-
এ ব্যপারে অনেক হাদীছ  বর্ণিত হয়েছে :যেমন নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) বলেন "আমি কি তোমাদের কে এমন বিষয়ের সংবাদ দিব না যা তোমাদের আমলের মধ্যে সর্বোত্তম ,তোমাদের মালিক আল্লাহর নিকট অতি পবিত্র ,সর্বাধিক মর্যাদা সম্পন্ন ,স্বর্ণ -রৌপ্য ব্যয় করার চাইতেও উত্তম এবং শত্রুর মোকাবেলায় যুদ্ধে হয়ে তাদের ঘাড়েপ্রহার করবে আর তারা তোমাদের ঘাড়ে প্রহার করবে -অর্থাৎ জিহাদের চাইতেও উত্তম ?তাঁরা বলেন ,হাঁ বলুন !তিনি বলেন ,তাহলো আল্লাহর জিকির"। (তিরমিযী ) নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম )আরো  বলেন ,"যে ব্যাক্তি আল্লাহর জিকির করে আর যে ব্যাক্তি আল্লাহর জিকির করে না তাদের উদাহরণ জীবিত ও মৃত্ ব্যক্তির মত। "(বুখারী ) হাদীছে কুদসীতে আল্লাহ তালা বলেন ," আমার আমার বান্দা আমার সম্পর্কে যেরূপ ধারণা করবে সেভাবেই সে আমাকে পাবে। সে আমাকে স্মরণ করলে আমি তার সাথে থাকি। সে যদি নিজের মনের মধ্যে আমাকে স্মরণ করে আমিও তাকে আমার মনের মধ্যে স্মরণ করি। সে যদি কোন সমাবেশে আমাকে স্মরণ করে আমিও তাকে তাদের চাইতেও  উত্তম সমাবেশে স্মরণ করি। সে যদি আমার ভিকে অর্ধ হাত অগ্রসর হয়,আমি তারদিকে এক হাত অগ্রসর হই। "(বুখারী ) নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) আরো বলেন,"মুফারিদুনগন  এগিয়ে গেল। সাহাবীগণ বলেন ,মুফারদুন করা হে আল্লার রসূল !তিনি বলেন :অধিকহারে যিকিরকারী পুরুষ নারী। "(মুসলিম) নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) জনৈক সাহাবীকে নসিহত করে বলেন,"তোমার জিহ্বা যেন সর্বদা আল্লাহর জিকিরে সিক্ত থাকে। "(তিরমিযী )
ছোয়াব বৃদ্ধি হওয়া :
নেক কাজের ছওয়াব  বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়ে অনেকগুন বেড়ে যায় যেমন কুরআন তেলাওয়াতের ছওয়াব বৃদ্ধি করা হয়। তার দুটি :( ১) অন্তরে ঈমান ,একনিষ্ঠতা এবং আল্লাহর প্রতি ভালবাসা ওতার আনুষঙ্গিক কর্মের কারনে। (২)শুধু মুখে উচ্চারণের মাধমে ই  জিকির নয় ;বরং জিকিরের প্রতি গবেষণাসহ মনোনিবেশ করার কারনে। যদি  এই দুটি কারনে পূর্ণ রূপে উপস্থিত তবে পরিপূর্ণ ছওয়াব দেয়া হবে এবং পরিপূর্ণরূপে গুনাহ ও  মোচন করা হবে।
জিকিরের উপকারিতা :-
শায়খুল ইইসলাম  ইমাম ইবনে  তায়ামিয়া (রাহঃ )বলেন ,মাছের জন্য যেমন  পানি  দরকার  অনুরূপ  অন্ত্রের জন্য  জিকির আবশ্যক। মাছকে যদি পানি থেকে বের করা হয় তবে তার অবস্থা কেমন হবে ?

  • জিকিরের মাধ্যমে আল্লাহর ভালবাসা লাভ করা যায়। তাঁর নিকটবর্তী হয় যায়। তাঁর সন্তষ্টি পাওয়া যায়। তাঁর পর্যবেক্ষন অনুভব করা যায় তাঁকে ভয় করা যায়। তাঁর কাছে প্রত্যাবর্তন করা যায় তাঁর অনুগত্য করতে সাহায্য পাওয়া যায়। 
  • জিকিরের মাধ্যমে অন্তরের দুঃখ -বেদনা দুশ্চিন্তা দূর হয়। খুশি ও আনন্দ লাভ করা যায়। অন্তর জীবিত থাকে ,তাতে শক্তি ও পরিচ্ছনতা সৃষ্টি হয়। 
  • অন্তরের মধ্যেস শূন্যতা ও অভাব থাকে আল্লাহর জিকির ছাড়া দূর হবে না। এমনিভাবে অন্তরের মধ্যে কঠোরতা আছে আল্লাহর জিকির ছাড়া তা নম্র হবে না। 
  • জিকির হচ্ছে অন্তরের আরোগ্য ও পথ্য এবং শক্তি। জিকিরের আনন্দ -স্বাদের তুলনায় কোন আনন্দ নেই ,কোনো স্বাদ নেই। অন্তরের রোগ হচ্ছে জিকির থেকে উদাসীনতা। 
  • জিকিরের সল্পতা মুনাফেকির দলিল।কেননা মানুষ যাকে ভালবাসে তাকে বেশি বেশি স্মরণ করে 
  • বান্দা যখন জিকিরের মাধ্যামে সুখের সময় আল্লাহকে চিনবে। তিনিও তাকে]দুঃখের সময় চিনবেন। বিশেষ করে মৃত্যুর সময় ,মৃত্যু যন্ত্রণার সময়। 
  • জিকির হচ্ছে আল্লাহর আযাব থেকে বাঁচার মাধ্যম। জিকিরের কারনে প্রশান্তি নাযিল হয় ,আল্লাহর রহমত আচ্ছাদিত করেএবং ফেরেস্তারা ইস্তেগফার করে। 
  • জিকির হচ্ছে সবচেয়ে সহজ এবাদত। সর্বাধিক গুরত্বপূর্ন ফযিলত পূর্ণ ইবাদত। জিকিরের মাধ্যমে জান্নাতের বৃক্ষ রোপন করা হয়। 
  • জিকিরের মাধ্যমে শয়তান দূরীভূত হয় ,তাকে মূলোত্পাটন করে। তাকে লাঞ্ছিত ও অপমানিত করে। 
  • জিকিরের মাধমে জিহ্বাকে বাজে কথা ,গীবত ,চুগলখোরি ,মিথ্যা প্রভৃতি হারাম ও অপছন্দনীয় বিষয় থেকে রক্ষা করা যায়। 
Share This
Previous Post
Next Post

Pellentesque vitae lectus in mauris sollicitudin ornare sit amet eget ligula. Donec pharetra, arcu eu consectetur semper, est nulla sodales risus, vel efficitur orci justo quis tellus. Phasellus sit amet est pharetra

0 মন্তব্য(গুলি):

thank you for comment

Read More Post